বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ হিসাব সহকারী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আইন মন্ত্রণালয়ে অধিনে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ হিসাব সহকারী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১।

সারাংশ
পদের নামঃ হিসাব সহকারী ।
পদের সংখ্যাঃ ০১ জন
প্রতিষ্ঠানঃ বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ।
চাকরির ধরনঃ স্থায়ী, গ্রেড/বেতনস্কেলঃ ১৬ তম গ্রেড/  ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা।
কর্মস্থলঃ বান্দরবান ।
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের তারিখঃ  ১৯ সেপ্টেম্বর  ২০২১ খ্রিঃ, সকালঃ১০.০০ ঘটিকা।
আবেদনের শেষ তারিখঃ ২১ অক্টোবর  ২০২১ খ্রিঃ; বিকাল; রাতঃ০৫.০০ ঘটিকা।
আবেদন ফিঃ ৫০০/- টাকা

 

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ হিসাব সহকারী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

চাকরির বিবরণঃ

আইন মন্ত্রণালয়ের রাজস্বখাতভুক্ত নিম্নবর্ণিত গ্রেডের শূন্য পদের  জন্য যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন আগ্রহী বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিকদের নিকট হতে দরখাস্ত আহবান করা  যাচ্ছে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, বয়স সংক্রান্ত শর্তাবলীঃ

শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতাঃ
উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান।

বয়সঃ
১৮  – ৩০ বছর

আবেদনের শর্ত নিয়মাবলীঃ

অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদে চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত শর্ত ও নিয়মাবলী প্রযোজ্য হবে –

আবেদনের শর্তাবলীঃ

১) বান্দরাবন পার্বত্য জেলা পরিষদ বরাবর স্ব-হস্তে লিখিত/পূরণকৃত সরকারি চাকরি আবেদন ফরম পূরণকৃত আবেদনপত্র আগামী ২১-১০-২০২১ ইং তারিখে বিকাল : ৫.০০ টার মধ্যে অফিস চলাকালীন সময়ে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদালিম কার্যালয়ে পৌছাতে হবে। উক্ত তারিখ/সময়ের পরে অনলাইনে কিংবা সরাসরি, ডাকযােগে বা অন্যকোন উপায়ে প্রাপ্ত দরখাস্ত গ্রহণ করা হবে না।

২) প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক এবং বান্দরবান জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। তবে বিভাগীয় প্রার্থীরদের অগ্রাধিকার বজায় থাকবে।

৩) ত্রুটিপূর্ন বা অসম্পূর্ণ  দরখাস্ত বাতিল বলে গন্য হবে। নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত পদের সংখ্যা হ্রাস /বৃদ্ধি বা বিজ্ঞপ্তি সংশোধন/ বাতিল করার অধিকার সংরক্ষণ করেন।

৪) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯ অনুযায়ী মেধা ক্রমানুসারে নির্বাচিত প্রার্থীদের দ্বারা প্রথমে (উপজেলাভিত্তিক) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্বখাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’ এর শূন্যপদসমূহ পূরণ করা হবে। মেধা তালিকার অবশিষ্ট প্রার্থী দ্বারা জাতীয়করণকৃত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্বখাতে সৃষ্ট “সহকারী শিক্ষক’ এর পদসমূহ পূরণ করা হবে।

৫) বিবাহিত মহিলা প্রার্থীগণ আবেদনে তাদের স্বামী অথবা পিতার স্থায়ী ঠিকানায় আবেদন করতে পারবেন। তবে এ দুটি স্থায়ী ঠিকানার মধ্যে তিনি যেটি আবেদনে উল্লেখ করবেন তার প্রার্থিতা সেই উপজেলার কোটায় বিবেচিত হবে।

৬) ২৫/০৩/২০২০ খ্রি: তারিখে প্রার্থীর বয়স ১৮ -৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শুধুমাত্র মুক্তিযাদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর হবে। বয়স নিরূপণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য নয়।

৭) অসত্য/ভুয়া তথ্য সংবলিত/ক্রুটিপূর্ণ/অসম্পূর্ণ আবেদনপত্র কোন কারণ দর্শানো ব্যতিরেকে বাতিল বলে গণ্য হবে। প্রার্থী কর্তৃক দাখিলকৃত/প্রদত্তকোন তথ্য বা কাগজপত্র নিয়ােগ কার্যক্রম চলাকালে যে কোন পর্যায়ে বা নিয়ােগ প্রাপ্তির পরেও অসত্য/ভুয়া প্রমাণিত হলে তার দরখাস্ত/নির্বাচন/নিয়ােগ বাতিল করা হবে এবং মিথ্যা/ভুয়া তথ্য সরবরাহ করার জন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত/প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

৮) পােষ্য কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে আবেদনপত্রের সাথে অবশ্যই পোষ্য কোটার স্বপক্ষে সংশ্লিষ্ট উপজেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক প্রদত্ত সনদ দাখিল করতে হবে। এর ব্যত্যয় হলে তার প্রার্থীতা পোষ্য কোটায় বিবেচনা করা হবে না।

৯) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯ এর ব্যাখ্যা অনুযায়ী “পােষ্য” অর্থ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োজিত আছেন

বা ছিলেন এমন শিক্ষকের অবিবাহিত সন্তান, যিনি উক্ত শিক্ষকের উপর সম্পূর্ণরূপে নির্ভরশীল আছেন বা তিনি জীবিত থাকলে বা চাকরিতে থাকলে সম্পূর্ণরূপে নির্ভরশীল থাকতেন এবং উক্ত শিক্ষকের বিধবা স্ত্রী বা বিপত্নীক স্বামী বা তালাকপ্রাপ্ত কন্যা যিনি উক্ত শিক্ষকের উপর

সম্পূর্ণরূপে নির্ভরশীল ছিলেন বা ক্ষেত্রমতে, তিনি জীবিত থাকলে অনুরূপভাবে নির্ভরশীল থাকতেন শুধুমাত্র তারাই পোষ্য কোটার প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত হবে।

১০) কোটার প্রার্থীগণ স্ব-স্ব আবেদনপত্রের খামের শিরোভাগে লাল কালিতে কোটার নাম, পুরুষ/মহিলা প্রার্থী এবং উপজেলার নাম লিখতে হবে।

১১) সরকারি/আধা-সরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহে চাকুরিরত/কর্মরত প্রার্থীদেরকে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন পত্র দাখিল করতে হবে। অগ্রিম কপি গ্রহণযােগ্য নহে।

১২) আবেদনপত্রে স্পষ্টাক্ষরে- (ক) আবেদনকারীর নাম, (খ) পিতা/স্বামীর নাম, (গ) মাতার নাম, (ঘ) বর্তমান ঠিকানা, (ঙ) পূর্ণাঙ্গ স্থায়ী ঠিকানা,

(চ) শিক্ষাগত যােগ্যতা, (ছ) অভিজ্ঞতা (যদি থাকে), (জ) জন্ম তারিখ, (ঝ) বয়স (২৫/২/২০২১ তারিখে), (এ) ধর্ম, (ট) জাতীয়তা,

(ঠ) বৈবাহিক অবস্থা, ড) পুরুষ/মহিলা, ঢ) মোেবাইল নম্বর ইত্যাদি উল্লেখ করতে হবে।

১৩) স্ব-হস্তে লিখিত আবেদনকারীদেরকে আবেদন পত্রের সাথে নিম্নবর্ণিত সত্যায়নকৃত কাগজপত্রাদি এবং অনলাইনে আবেদনকারীদের মধ্যে যারা মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত/মনােনিত হবেন তাদেরকে নিম্নবর্ণিত সত্যায়নকৃত কাগজপত্রাদি মৌখিক পরিক্ষার পূর্বে দাখিল করতে হবে।

  • ক) সদ্যতােলা পাসপাের্ট সাইজের ৪ কপি রঙিন ছবি।
  • খ) বান্দরবান পার্বত্য জেলার স্থায়ী বাসিন্দার স্বপক্ষে বােমাং সার্কেল চীফ/জেলা প্রশাসক এর প্রদত্ত স্থায়ী বাসিন্দা সনদপত্র।
  • গ) শিক্ষাগত যােগ্যতা সম্পর্কিত সকল প্রকার সনদপত্র/ সাময়িক সনদপত্র।
  • ঘ) সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিকতা সনদপত্র।
  • ঙ) জাতীয় পরিচয়পত্রের উভয় পৃষ্ঠার সত্যায়িত ফটোকপি এবং জন্ম নিবন্ধনের কপি।
  • চ) পােষ্য কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ উপজেলা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক (০১/০১/২০২১ তারিখের পূর্বে স্বাক্ষরিত নয়) প্রদত্ত পােষ্য সনদপত্র।ণ
  • ছ) সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছরের কোটার প্রার্থীদের প্রমাণের ক্ষেত্রে: –
  • ১) মুক্তিযােদ্ধার সন্তান প্রার্থীদের জন্য সরকারের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে মুক্তিযাদ্ধার প্রয়ােজনীয় কাগজপত্র এবং
  • ২) শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের অনুকূলে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র।

১৪) প্রার্থীর সনদপত্র ও ছবি সত্যায়নকারী কর্মকর্তার (৯ম বা তদু্ধ্ব গ্রেডের গেজেটেড কর্মকর্তা) স্বাক্ষরের এর নিচে নামসহ সীল থাকতে হবে।

১৫) নিয়ােগের ক্ষেত্রে নিয়ােগ কমিটির ১৮/০১/২০২১ খ্রিঃ তারিখের সভার সিদ্ধান্ত অনুসরণ করা হবে।

১৬) লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার অংশগ্রহণের জন্য কোন প্রকার টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।

১৭) আবেদনপত্রের সাথে নিম্নস্বাক্ষরকারী অনুকূলে যে কোন তফসিলী ব্যাংক হতে ৫০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট/পে-অর্ডার সংযুক্ত করতে হবে। পােস্টাল অর্ডার গ্রহণযোগ্য নয়।

১৮) আবেদনপত্র গ্রহণ বা বাতিলের বিষয়ে নিয়ােগকারী কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। এ বিষয়ে কোনো প্রকার আপত্তি গ্রহণযােগ্য হবে না। এছাড়া অনিবার্য কারণবশত: নিয়ােগ প্রক্রিয়া স্থগিত/বাতিল/প্রত্যাহার করার সম্পূর্ণ ক্ষমতা নিয়ােগকারী কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করেন।